Sale!

তোকমা দানা – Basil Seeds 500 gm

৳ 161.00

  • আঁশ হজম প্রক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে
  • ক্ষুধা কমায় ও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে
  • প্রদাহ, ক্যানসার কোষ প্রতিরোধ এবং বার্ধক্য রোধে সহায়তা করে।
  • তোকমা এসিডিটি দূর করতেও কার্যকর।
  • এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে, সুস্থ হার্ট এবং হাড় গঠনে সহায়তা করে।
  • তোকমা গরমকালে দেহের তাপমাত্রা কমাতে সহায়তা করে।
  • এটি নানা চর্মরোগ নিরাময়ে কাজ করে। এটি একজিমা এবং সোরিয়াসিস নিরাময়ে কার্যকর।
  • পরিপাক ক্রিয়া স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে
  • ঠাণ্ডা-কাশির সমস্যা দূর করে
  • হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য এবং দুশ্চিন্তা কমাতে কাজ করে
  • মুখের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে
  • গাটস এর সুরক্ষা প্রদান করে

আমাদের দেশে তোকমা খুবই পরিচিত ও জনপ্রিয় একটি বীজ দানা। যা পানিতে বা শরবতে ভিজিয়ে খেতে হয়। আয়ুর্বেদ, ইউনানি ও চীনা মেডিসিনে যার বহুল ব্যবহার রয়েছে। বিজ্ঞানে Ocimum Sanctum গোত্রের একটি উদ্ভিজ্জ উপাদান হিসেবে থাকলেও এই বীজের ব্যবহার সারা দুনিয়াজুড়ে পানীয় হিসেবেই পরিচিত। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আঁশ, প্রোটিন, আয়রন এবং ক্যালরি।

 

তোকমা বীজ পানিতে ভিজিয়ে খেতে হয় বলে এর একটি জেলী জাতীয় আবরণ হয়, যা পরিপাকে সাহায্য করে। এছাড়াও এতে প্রচুর আঁশ থাকায় হজম, কোষ্টকাঠিন্য, ডায়রিয়া, আমাশয় ইত্যাদি সমস্যায় বেশ উপকারী ভূমিকা রাখে।

তোকমা বীজের তেল গ্যাস্ট্রিক বা এসিডিটির সমস্যা দূর করতে সক্ষম। তোকমা খেলে ক্ষুধাভাব কমে আসে। পেট ভরা অনুভুত হয় বলে ওজন নিয়ন্ত্রনে থাকে। প্রোটিন, আঁশ, ভিটামিন, ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড থাকে বলে শরীরে বল পাওয়া যায় তোকমা সেবনে। এছাড়াও সকালের নাস্তায় তোকমা খেলে সারাদিন শরীর থাকে ঝরঝরা।

তোকমা জ্বর কমাতে এবং শ্বাসকষ্ট দূর করতে সহায়তা করে, তাই হাঁপানি রোগীরা নিয়মিত তোকমা ওষুধ হিসেবে সেবন করত পারেন। আবার এতে লাইনলিক ও ফ্যাটি এসিড থাকায় টিউমারের বৃদ্ধি রোধ করে। তোকমা গ্রহণকারী ইঁদুরের গবেষণায় এটি প্রমাণিত।

শরীরের প্রদাহ, ফোলা ভাব, আরথ্রাইটিসের সমস্যায় তোকমা দারুন উপকারী। কোলেস্টেরল, হৃদরোগের সমস্যা সমাধানেও তোকমা ব্যবহার হয়। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, লিপিড স্তর সীমিত রেখে দুশ্চিন্তা দূর করে। আবার তোকমা মুখের নানা ধরণের ইনফেকশন, আলসার, প্রদাহের বিরুদ্ধে কাজ করে। মুখের দুর্গন্ধ ও দাঁতের ক্ষয়ও রোধ করে।

তোকমা খাওয়ার সময় পানিতে ভিজিয়ে নিতে হবে। পরিপূর্ণ ভিজে ফুলে উঠলে শরবত বা পানিতে মিশিয়ে খেয়ে নিতে হবে। তবে শিশু ও গর্ভবতীদের জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে খাওয়া ভাল। যারা এখনো তোকমা খাওয়া শুরু করেননি তারা প্রতিদিন এক চামচ করে শুরু করতে পারেন। আর পার্থক্যটা নিজে থকেই বুঝতে পারবেন।

 

ব্যবহারের কিছু নিয়ম ও সতর্কতা:

তোকমা খাওয়ার পূর্বে তোকমা বীজ পানিতে ভালোভাবে ভিজিয়ে রাখতে হবে।

বীজগুলো একদম বড় হয়ে ফুলে উঠলে এরপর সেটা খাওয়া যাবে।

শিশুদের এটা খাওয়ানোর ক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে।যেহেতু এটা বেশ পিচ্ছিল হয়ে যায় ভেজানোর পর।

গর্ভবতী নারীদের অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তোকমা গ্রহণ করা উচিৎ।

প্রতিদিন তোকমা বীজ খেতে চাইলে এক চা চামচ গ্রহণ করাই কিন্তু যথেস্ট হবে।

Reviews

There are no reviews yet.

Only logged in customers who have purchased this product may leave a review.